ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বির্তকিত আলাউদ্দিন

ষ্টাফ রিপোটার ঃ

নানা কর্মকান্ডে বির্তকিত কুতুবপুর ইউনিয়ন ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আলাউদ্দিন হাওলাদার কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হতে মরিয়া হয়ে উঠেছে । বেশ কিছু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে বির্তকিত এই আলাউদ্দিন এমন রূপ দেখে হাস্য কর বলে মনে করছেন তৃণমূল অনেক নেতাকমীরাই ।

কুতুবপুরের বেশ কিছু তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায় যিনি কুতুবপুরে নানা বির্তকিত কাজের সাথে জড়িত , এমন কি নিজে ভালো ভাবে নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে না তিনি কিনা হবে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এটা যেমনি হাস্যকর তেমনি আবার অবাক করা কথা ।

নাম না বলতে ইচ্ছুক তৃনমূল এক নেতা জানানা , যার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা অভিযোগ ,জিডির পাহাড় ,তিনি কিনা হবে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলগের সভাপতি শুধু তাই নয় নারী কেলেঙ্কারী,জুয়ারী খেত , ভূমিদুস্য , চাঁদাবাজীর ও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে , তিনি কিনা হবে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এটা আসলেই হাস্যকর ছাড়া কিছু না ।

বিভিন্ন সময় নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় নানা বির্তকিত কাজের জন্য সমলোচনায় দেখা যায় এই আলাউদ্দিন হাওলাদার কে বেশ কয়েক মাস আগে ৪ যুবক কে মধ্য যুগি কায়দায় পিটিয়ে আলোচণায় আসেন আলাউদ্দিন মেম্বার , তার কয়েক মাস পরে এলাকার সা্ঈদ নামের এক প্রতিবন্ধি কে পিটিয়ে , একের পর এক বির্তকো করেই চলছে এই আওয়ামীলীগ নেতা ।

সব শেষ শাহী মহল্লা কবরস্থান নিয়ে সমআলোচণায় আসেন এই বির্তকিত নেতা । তার এমন কর্মকান্ডে নানা ভাবে বির্তকিত হচ্ছেন কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সহ সহযোগি সংগঠন । তার বিরুদ্ধে দলীয় কোন ব্যবস্থা না নেওয়া ক্ষোভও প্রকাশ করেন অনেক নেতাকর্মীরা ।

তৃনমূল নেতা কর্মীদের দাবী আলাউদ্দিনের মত এমন একজন বির্তকিত নেতা কে এপদে না এনে সচ্ছ একজন কে আনা হোকদল কে গুছানোর জন্য , আলাউদ্দিনের মত লোক এপদে আসলে তৃনমূল নেতাকর্মীদের কোন মূল্যয়ন পাবে না বলে তারা মনে কনের ।