নারী কনস্টেবলের অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল, প্রেমিক গ্রেফতার

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াটস অ্যাপে ‘বিডি পুলিশ’ নামে একটি গ্রুপ খুলে এক নারী পুলিশ কনস্টেবলের অশ্লীল ভিডিও ও ছবি ভাইরাল করার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ৩ জুন রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানায় ওই নারী কনেস্টেবল তার প্রেমিক হৃদয় খানের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন। এরপর পুলিশ রাজধানীর মগবাজার থেকে রাতেই হৃদয় খানকে (২৫) গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃত হৃদয় খান কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানার সৈয়দখারকান্দি গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে। সে স্বপরিবারে রাজধানীর রমনা থানার ৮২ নং মগবাজার এলাকায় বসবাস করেন। ওই নারী কনেস্টেবল (২৪) নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার চাঁদমারী এলাকার বাসিন্দা এবং কক্সবাজার জেলায় কর্মরত আছেন। হৃদয় নারী কনেস্টেবলের সম্পর্কে আত্মীয় হয় বলে মামলায় উল্লেখ করেন।

মামলায় উল্লেখ করা হয়, দুই বছর ধরে হৃদয় ও নারী কনেস্টেবলের মধ্যে প্রেম ভালোবাসা চলে আসছে। এর মধ্যে তাদের সঙ্গে হোয়াটস অ্যাপে একাধিকবার ভিডিও কলে কথা হয়। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে হৃদয় নারী কনেস্টেবলের স্পর্শকাতর স্থানের ছবি ও ভিডিও দেখেন এবং গোপনে তা রেকর্ড করে রাখে।

এছাড়া সরাসরি দেখা হওয়ার পর ঘনিষ্ট মূহুর্তের কিছু ভিডিও ধারন করে হৃদয়। পরে সম্পর্কের টানাপোড়েন হলে অনেকের নাম্বার সংগ্রহ করে হোয়াটস অ্যাপে বিডি পুলিশ নামে গ্রুপ খুলে ওইসব ভিডিও ও ছবি গ্রপে ছেড়ে দেয় এবং তা ভারাইরাল হয়।

ওই নারী আরোও উল্লেখ করেন, গত ২ জুন ছুটি পেয়ে নারায়ণগঞ্জের বাড়ীতে এসে বৃহস্পতিবার ৩ জুন সকাল ৯টায় হোয়াটস অ্যাপ চালু করে বিডি পুলিশ নামক হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপে দেখেন হৃদয় আপত্তিকর ভিডিও ছড়িয়ে দিয়েছে। পরে তিনি পরিবারের সদস্য ও কর্মস্থলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে থানায় গিয়ে আইনের সহায়তা চান।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মামলাটি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। রাতে মামলা দায়েরের পরই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্ত যুবককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমাণ্ড চেয়ে নিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া পরবর্তী আইনগত কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।