জিয়ার পরিবারকে মিথ্যা মামলা দিয়ে কাবু করছে সরকার – তৈমুর আলম

নারায়ণগন্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক অ্যাড.তৈমুর আলম খন্দকার বলেছেন, জিয়া ও জিয়ার পরিবার এখন বর্তমান সরকারের প্রধান শত্রু।তা না হলে কেনইবা একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়ে তার দল ও পরিবারকে কাবু করছে। তিনি বলেন, বর্তমানে দেশের কোথাও কোন নির্বাচন হচ্ছেনা। হচ্ছে নির্বাচনের নামে তামাশা।

তিনি আরও বলেন, এখন তো হাওয়া ভবন বা তারেক রহমান নেই। তাহলে প্রতি বছর ৬৪ হাজার কোটি টাকা বিদেশে মানি ল্যান্ডারিংয়ের মাধ্যমে পাচার হচ্ছে।এখন এগুলো কারা করছে। এখন এগুলো পাচার করছে আওয়ামীলীগের লোকজন। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪০তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে ফতুল্লা থানা যুবদলের উদ্যোগে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও তোবারক বিতরণ অনুষ্ঠান প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

মঙ্গলবার (৮ জুন) বাদ যোহর ফতুল্লাার হরিহরপাড়া এলাকায় ফতুল্লা থানা যুবদলের উদ্যোগে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

ফতুল্লা থানা যুবদলের আহবায়ক হাজী মোঃ মাসুদুর রহমান মাসুদের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মোঃ সালাউদ্দিন আহম্মেদ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি শহীদুল ইসলাম টিটু।

জেলা বিএনপির আহবায়ক এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের অনেক জায়গায় শহীদ জিয়ার শাহাদাত বার্ষিকী পালন করতে গিয়ে পুলিশের আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের কাছে বাধাগ্রস্থ হয়েছে। কোন জায়গায় খাবার ছিনিয়ে নেয়া এবং প্যান্ডেলও ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কোন পর্যায়েই এখন নির্বাচন হয়না। সরকারের পক্ষ থেকে যার নাম বলে দেয়া হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে দ্বায়িত্ব নিয়ে সেখানে তারা নিজেরাই নির্বাচন করে দিয়ে আসেন। নেতাকর্মীদেরকে তিনি বলেন, দেশে যে ক্রান্তিকাল চলছে তা বেশী দিন থাকবেনা। যখন শাসক নিজেই অত্যাচারীর ভুমিকা পালন করে তখন দেশের মানুষের পক্ষে আল্লাহ থাকেন।

তিনি আরও বলেন,যখন বিএনপি ক্ষমতায় ছিলো তখন বিএনপির অনেক নেতা ছিলো এখন বিএনপি ক্ষমতায় নেই কিন্তু সেই বড় বড় নেতাদেরকে মাঠে দেখা যায়না। অথচ এত অত্যাচার নিপীড়নের পরও আপনারা এখনও পর্যন্ত বিএনপির পতাকাতলে রয়েছেন এজন্য আপনাদেরকে ধন্যবাদ জানাই।

তিনি আরও বলেন,আমাদের মহাসচিব সাহেব বলেছেন যেকোন সময় আন্দোলনের ডাক পড়বে।

আমি আপনাদেরকে বলবো আপনারা প্রস্তুত থাকুন আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ার জন্য। কারন নারায়ণগঞ্জ হচ্ছে আন্দোলনের সুতিকাগার।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা যুবদলের সিনিয়র সহসভাপতি মোঃ সালাহউদ্দিন সালামত, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহীদুর রহমান স্বপন, নারায়ণগন্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য রিয়াদ মোঃ চৌধুরী, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জিয়াউল ইসলাম চয়ন, ফতুল্লা থানা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোঃ ইসমাইল হোসেন খান, যুগ্ম আহবায়ক মোঃ মোঃ নুরুল ইসলাম লাভলু, মোঃ আনিছুর রহমান, মোঃ কামাল উদ্দিন, মোঃ শাহজাহান বেপারী, কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক মাসুম আহমেদ রাজ, ফতুল্লা ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক মোঃ আব্দুল খালেক টিপু, এনায়েতনগর ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক মোঃ মনির হোসেন, কাশিপুর ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক আরিফ মন্ডল, বক্তাবলী ইউনিয়ন যুবদলের আহবায়ক মোঃ আমির বেপারী, যুবদল নেতা মো.হাসান আলী, কুতুবপুর ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য সচিব মোঃ ইসমাইল হোসেন, এনায়েতনগর ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য সচিব মোঃ খায়রুল আলম জসিম, কাশিপুর ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য সচিব মোঃ শাহীন কাদির, বক্তাবলী ইউনিয়ন যুবদলের সদস্য সচিব মোঃ নজরুল প্রধান, যুবদল নেতা মো.আমির হোসেন, মো.আবদুল হালিম, ইউনিয়ন যুবদল নেতা শাহিন, মিশু, রুবেল, মাকসুদ মাসুম, রবিউল ইসলাম, কামাল, জুয়েল রানা,রাজা, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা আমিনুল হাসান লিটন, দেলোয়ার, সেলিম প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিলে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আত্মার মাগফিরাত কামনা করার পাশাপাশি সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পুরোপুরি সুস্থতা কামনা করা হয়।

সবশেষে গরীব মানুষের মাঝে উন্নত মানের রান্না করা খাবার তোবারক বিতরণ করা হয়।