জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পেতে যাচ্ছে লালপুর- পৌষাপুকুর বাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃফতুল্লা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড অন্তভূক্ত লালপুর- পৌষাপুকুর পাড় এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে সেচ পাম্প উদ্ধোধন করা হয়েছে।সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের নির্দেশে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ফতুল্লা থানা যুবলীগের সভাপতি মীর সোহেল আলীর তত্ত্বাবধায়নে বুধবার(৭জুলাই) বিকেলে এই সেচ পাম্পটি চালু করা হয়।এ সেচ পাম্প পানি টেনে তা বুড়িগঙ্গা নদীত ফেলা হচ্ছে।এ সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত  লালপুর-পৌষাপুকুরের শত শত  এলাকাবাসীর উপস্থিতিতে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃস্টি হয়।

পাম্পের তত্বাবধায়নে থাকা নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগর সাংগঠনিক সম্পাদক ও ফতুল্লা থানা যুবলীগর সভাপতি মীর সোহেল আলী জানান, ফতুল্লা ইউনিয়নর ৪নং ওয়ার্ডের চার দিকের এলাকা উচু হওয়ায় পানি নিস্কাঃসন হতে পারেনা। 
সাত থেকে আট বছরের ও বেশী সময় ধরে লালপুর পৌষপুকুরপাড় এলাকায় বছরের অধিকাংশ সময় পানির নিচে তলিয়ে থাকে।বিগত বছর গুলোতে  মানুষ কোন মতে চলাফেরা করতে পারলেও এ বছর বৃস্টির পানিতে তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট,ঘরবাড়ী। কোমর সমান পানিতে তলিয়ে আছে রাস্তা সহ প্রতিটি বাড়ীঘর।

 এমপি শামীম ওসমান বিষয়টি জানতে পেরে এলাকাবাসীর  ডাকে দ্রুত এর সমাধানর উদ্যগ নিয়েছেন। তিনি আরো জানান, প্রায় ১২লাখ টাকা ব্যয়ে বুস্টার নামক উচ ক্ষমতা সম্পন ডিজেল চালিত একটি পাম্প ৪নং ওয়ার্ডর লালপুর রওশন হাউজিং এলাকায় জালাল হাজীর পুকুরে স্থাপন করা হয়ছ। এক ঘটায় যে পরিমানর পানি নিস্কাঃসন হবে  তাতে আশা করা যায় আগামী  তিন দিনের মধ্যে লালপুরের প্রতিটি বাসা বাড়ির ও সড়কর পানি শুকিয় যাবে। এ পাম্পটি অনেক ব্যয় বহুল দৈনিক ৩০ হাজার টাকার ডিজেল খরচ হব। আপাতত এ পাম্প চলবে। পরে এ এলাকাকে  ডিএনডি প্রকল্পের  আওতায় এনে স্থায়ী  ভাবে জলাবদ্ধতা নামক সমস্যার সমাধান করা হবে বলে তিনি জানান।