জাতীয় ৪ নেতা ছিলেন দেশ প্রেমিক-জেলা প্রশাসক

৪ নভেম্বর বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগার মিলনায়তনে আলোর পথের যাত্রী সংগঠনের উদ্যোগে জাতীয় ৪ নেতা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক(ডিসি) মো.জসিম উদ্দিন উক্ত সভায় তার  ভাষনে বলেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে অন্তরে নিতে হবে। বাংলাদেশ বিশ্বের একমাত্র দেশ যা মাত্র ৯ মাসে স্বাধীন হয়েছে। তাজউদ্দিনের হাতে এক সময় পুরো মুজিবনগর সরকারের দায়িত্ব শুধু শুধু দেয় নাই। জাতীয় ৪ নেতা ছিলেন দেশ প্রেমিক ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। তাজউদ্দিনের হাতে অস্থায়ী প্রধানমন্ত্রীর মতো দায়িত্ব দিয়েছে। সে সারা বাংলাদেশের গর্ব, তার মেধাকে সারা বিশ্বে ভয় করতো। যদি আবার কোন দিন সুযোগ পায় আমাদের জাতীয় পতাকা খামছে ধরবে সেই একাত্তরের প্রেতাত্মা।

আলোর পথের যাত্রী সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত উক্ত অনুষ্ঠানের জেলা প্রশাসক আরও বলেন, আমার সন্তানরা পরবর্তী মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে না। তাদের হাতে হাতে ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে মাদক এবং গাজা। আওয়ামীলীগের সভাপতি বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী তাদের কর্মীর হাতে তুলে দিচ্ছে না কেন? নারায়ণগঞ্জে কি ছিলো যে বঙ্গবন্ধু এখানে আসছিলেন সেই ইতিহাসগুলো আমাদের নতুন প্রজন্মদের কাছে তুলে ধরতে হবে। নজরুল ইসলাম কেন রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন সেই ইতিহাস জানতে হবে। আমাদের নতুন প্রজন্মকে প্রস্তুত করতে হবে। এই ধরনের অনুষ্ঠান আমাদের আরো করতে হবে যাতে মানুষ জানে একাত্তরের ইতিহাস।

সভায় সংগঠনের সভাপতি নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এম এ রাসেলের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন- মূখ্য আলোচক নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, বিশেষ অতিথি সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান বাচ্চু, বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজিমউদ্দিন প্রধান, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগ সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন ভূইয়া সাজনু, জেলা ব্যাংক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি শ্রমিক নেতা আবদুল কাদির, রাষ্ট্রীয় পুরষ্কার প্রাপ্ত সমবায়ী সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব জামাল উদ্দিন সবুজ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য এড. নূর জাহান বেগম, সোনাগাঁয়ের সাবেক এমপি মরহুম মোবারক হোসেন সাহেবের সন্তান এরফান হোসেন দীপ, আলোর পথের যাত্রীর সিনিয়র সহ সভাপতি সিরাজুল হক ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনসহ আরও অনেকে।